এইমাত্র পাওয়া : দেশে ফিরেছেন মির্জা ফখরুল – জেনে নিন সর্বশেষ পরিস্থিতি

লন্ডনে চিকিৎসাধীন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করে দেশে ফিরেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান।

৩ জুন চিকিৎসার জন্য স্ত্রী রাহাত আরা বেগমকে নিয়ে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্ল্যাইটে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে যান।

সেখানের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ভিসুটের অধীনে তিনি চিকিৎসা নেন। এরপর তিনি শনিবার দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করার জন্য লন্ডনে যান।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের ২৮ এপ্রিল চিকিৎসার জন্য মির্জা ফখরুল ব্যাংকক গিয়েছিলেন।

লন্ডনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করায় দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদের দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ দাবি জানান।

তারেক রহমানের সঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের লন্ডনে বৈঠকের সমালোচনা করে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামির সঙ্গে শুধু বৈঠকই করেননি, ভূরিভোজও করেছেন।

ওখানে বসে কী ষড়যন্ত্র করছেন, তা খতিয়ে দেখতে হবে। একজন সাজাপ্রাপ্ত পালাতক আসামির সঙ্গে সাক্ষাৎ করার আইনের ব্যত্যয় ঘটে কিনা, সেটা খতিয়ে দেখে আইনের আওতায় আনতে হবে।’

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘আগামী নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী। নির্বাচন করবে নির্বাচন কমিশন, সেদিকে মনোযোগী না হয়ে বিএনপি এখন বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে।

তারা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। বিদেশিদের কাছে বাংলাদেশবিরোধী প্রচারণা চালাচ্ছে।’

ইসলামের কল্যাণে বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আল্লাহর নাম নিয়ে দেশ স্বাধীন করেছিলেন।

বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, এ দেশকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ। এদেশে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন বঙ্গবন্ধু।

তার হাত ধরেই বিশ্ব ইসলামী সংস্থা ওআইসির সদস্যপদ লাভ করে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পরপরই এদেশে মদ-জুয়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *