বউয়ের ভয় নিয়ে একি বললেন দুদক চেয়ারম্যান !

নারীরা সচেতন হলে সমাজে দুর্নীতি অনেকাংশে কমে যাবে উল্লেখ করে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ মন্তব্য করেছেন, ‘বহু লোক কিন্তু সমাজে আছে, যারা বউয়ের ভয়ে দুর্নীতি করেন না।’

আজ রোববার ধানমন্ডির মাইডাস সেন্টারে ‘দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত আয় ও সম্পদের পারিবারিক দায় : নারীর ভূমিকা, ঝুঁকি ও করণীয়’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন দুদক চেয়ারম্যান।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘আমার এক বন্ধু ছিল, আমরা তখন চাকরি শুরু করেছি মাত্র। আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম, ঘুষ খেয়ে তুই টাকা কী করস? সে বলেছিল- সমস্যা আছে বুঝছিস, টাকা আনছি কিন্তু আইনা বউয়ের সামনে দিতে পারছি না। আমি বললাম, কেন। সে বলল- বউ খালি জিজ্ঞেস করে যে, এই টাকা কই পাইলা?’

শেষমেশ স্ত্রীর বাধার কারণে ওই সহকর্মীর ঘুষের টাকা বেহাত হয়ে গিয়েছিল বলে জানান দুদক চেয়ারম্যান। তাই নারীরা সচেতন হলে সমাজে দুর্নীতি অনেকাংশে কমে যাবে বলে মনে করেন তিনি।

নারী কর্মকর্তাদের অসচেনতার কারণে দুর্নীতির ঘটনায় জড়িয়ে পড়ার কথা উল্লেখ করে সাবেক এই সচিব আরও বলেন, ‘দুই বছর কাজ করতে গিয়ে দেখেছি একটি মাত্র ঘটনায় সম্পত্তির মালিক নারীটি জানেন তিনি কাজটি (দুর্নীতি) করেছেন। এছাড়া আর আমি কোনো নারীকে বলতে শুনি নাই- ‘আমি জানতাম’।

স্বামীর অবৈধ সম্পদের কারণে নারীরা অনাহুতভাবে ফেঁসে জাচ্ছেন বলে জানিয়ে ইকবাল মাহমুদ আরও বলেন, ‘১১৮টি মামলায় নারীরা ভিকটিম হয়ে যাচ্ছে, তাদের কী করব আমরা। এক্ষেত্রে আমরা কীভাবে জানব, তিনি জানতেন না। এমনও হয়েছে, স্বামী স্বাক্ষর করেছে স্ত্রীর নামে। সেগুলো আমরা এক্সপার্ট দিয়ে বের করেছি। কিন্তু যেগুলো বের করতে পারব না, সেগুলোর কী হবে!’

তাই স্বামীদের দুর্নীতি ঠেকানোর পাশাপাশি নিজেরা যে কোনো কাজ করার ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বনের জন্য নারীদের পরামর্শ দেন দুদক চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘আমার একটি অনুরোধ, আপনারা ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে সই করার আগে স্বামীকে জিজ্ঞেস করবেন, কিসের সই? কোন কারণে? পাশাপাশি ব্ল্যাংক চেকে সই করবেন না। চেকে সই করার আগে কিসের টাকা? কোথায় টাকাটা যাবে? তাও জানবেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *