ব্রেকিং : রিট আবেদনটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন হাইকোর্ট ! (এইমাত্র পাওয়া)

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচন স্থগিত চেয়ে করা রিট আবেদনটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার রিট আবেদনটি শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হলে বিচারপতি জিনাত আরা ও বিচারপতি কাজী ইজারুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ তা বাদ করে দেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এসব জানিয়েছেন।

ভোটার তালিকা ত্রুটিপূর্ণ উল্লেখ করে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচন স্থগিত চেয়ে মঙ্গলবার রিট আবেদনটি করেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ।

ওইদিন রিটকারী বলেন, ১৯৭২ সালের বার কাউন্সিল অর্ডারের ২৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ভোটার তালিকা প্রস্তুত করা হয়নি। এই অর্ডারের ২৭ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কোন বারে ভোটার হবেন, এজন্য লিখিত অপশন দিতে হবে। অপশন না দিলে তিনি মাদার বারের সদস্য নন। কিন্তু বার কাউন্সিলে অপশন না দিয়ে মাদার বারের ভোটার না করে, সুপ্রিম কোর্ট বারের ভোটার করা সাংঘর্ষিক।

উল্লেখ্য, দেশের আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রকারী সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা আগামী ১৪ মে। ওইদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটারের সংখ্যা ৫৭ হাজার। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ভবন ছাড়াও দেশের জেলা সদর এবং উপজেলা সদরের দেওয়ানী আদালত প্রাঙ্গণ ও বাজিতপুরের কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

সিঙ্গাপুরেই তাহলে দেখা হচ্ছে ট্রাম্প-কিমের

গুঞ্জন আগেই ছিল সিঙ্গাপুরে আগামী জুনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উনের দেখা হতে পারে।

মাঝে একটা লম্বা সময়ে একে অপরকে হুমকি-ধমকি দেয়া এ দুই নেতার দেখা আসলেও কোথায় হচ্ছে তা এখনও নিশ্চিত না হলেও সিঙ্গাপুরের সম্ভাবনাই আরও বেশি হচ্ছে।

সিএননের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাম্প ও কিমের মধ্যে অনুষ্ঠেয় বৈঠকের জন্য সিঙ্গাপুরকে স্থান নির্ধারণ করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের পরিকল্পনা এগিয়ে নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন এমন দু’জন এ তথ্য দিয়েছেন।

তবে স্থান নির্ধারণেল বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নির্ভর করছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপর, বুধবার তিনি বলেছেন, আগামী তিনদিনের মধ্যেই তিনি জানিয়ে দেবেন কিমের সঙ্গে কোথায় দেখা হবে তার।

তবে দুই কোরিয়ার মধ্যবর্তী বেসামরিকীকৃত এলাকায় (ডিমিলিটারাইজড জোন) এ বৈঠক হতে পারে বলে যে গুঞ্জন উঠেছিল হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপে সে সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প।

এই বৈঠকের সম্ভাব্য ভেন্যু হিসেবে এখনও দুই কোরিয়ার মধ্যবর্তী বেসামরিকীকৃত এলাকা ও সিঙ্গাপুরের নাম এসেছে প্রকাশ্যে।

পিয়ংইয়ংয়ের কাছাকাছি কোনো ভেন্যু হিসেবে নিরপেক্ষতার বিবেচনায় সিঙ্গাপুরকেই পছন্দের তালিকার শীর্ষে রেখেছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি হোয়াইট হাউস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *