ব্রেকিং : ১২৫ কোটি ‘সন্দেহজনক লেনদেন’ দুদকের জিজ্ঞাসাবাদের পর বের হয়েই যা বললেন বিএপনি নেতা তাবিথ আউয়াল

ব্যাংকে ১২৫ কোটি টাকা ‘সন্দেহজনক লেনদেনের’ তথ্যে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) তলবে হাজির হওয়া বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল এই পদক্ষেপকে রাজনৈতিক হয়রানি বলেছেন। তার দাবি, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে লক্ষ্য রেখে তাকে এবং দলের অন্য সাত নেতাকে হয়রানি করছে দুদক।

মঙ্গলবার সকাল পৌনে ১০টায় দুদক কার্যালয়ে যান তাবিথ। সকাল ১০টায় শুরু হয় জিজ্ঞাসাবাদ। দুদকের উপপরিচালক এস এম আকতার হামিদ ভূঁইয়া বেলা দেড়টা পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এরপর তাবিথ বের হয়ে এসে কথা বলেন গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে।

এক প্রশ্নে বিএনপি নেতা বলেন, ‘আমাদের মূল হয়রানির মানে হচ্ছে আমাদের দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার হয়রানি। মূলত তাকে লক্ষ্য করে আমাদের এভাবে হয়রানি করার হচ্ছে। বাংলাদেশের বর্তমানে যে রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে, আমি মনে করি সকল অ্যাকশনেই (কাজে) সরকারের একটা প্রভাব রয়েছে।’

এপ্রিলের শুরুতে একটি অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের সূত্র ধরে বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, মির্জা আব্বাস, আবদুল আউয়াল মিন্টু, এম মোর্শেদ খান, হাবিব উন নবী খান সোহেল, তাবিথ আউয়ালের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরুর সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। মোর্শেদ খানের ছেলে খান ফয়সাল মোর্শেদ খানের বিরুদ্ধেও চলছে এই অনুসন্ধান।

একটি গোয়েন্দা সংস্থার বরাত দিয়ে ওই পত্রিকার খবরে বলা হয়, মার্চ মাসে বিএনপির এই আট নেতা ১২৫ কোটি টাকা লেনদেন করেছেন। আর এই লেনদেনকে সন্দেহজনক হিসেবে দেখছে গোয়েন্দা সংস্থাটি।

এই খবর প্রকাশের পর ২ এপ্রিল দুদকের উপপরিচালক সামছুল আলমকে এই বিষয়ে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেয়ার খবর এসেছে গণমাধ্যমে।

৩ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলন করে দলের চার নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও আবদুল আউয়াল মিণ্টু দুদকের তীব্র সমালোচনা করেন। নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে নোংরা রসিকতা করছে দুদক।’

বিএনপি নেতাদের এই প্রতিক্রিয়ার পর জানতে চাইলে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বিএনপি নেতাদের অভয় দিয়ে বলেন, ‘অভিযোগ ওঠলে আমাদেরকে সেটা নিতেই হবে। এখন ওই অভিযোগের ভিত্তি আছে কি নাই সেটা তো দেখবার সুযোগ (অনুসন্ধানের সময়) দেবেন।… এখানে অনুসন্ধানের কী রিপোর্ট আসে সেটা পাওয়ার পর আমি বলতে পারব বিস্তারিত। এর আগে আমিও তেমন কিছু বলতে পারি না। তবে কারোর প্রতি অন্যায় হোক এটা আমরা চাই না।’

বিএনপির এই আট নেতার মধ্যে দুদক প্রথম কথা বলল তাবিথ আউয়ালের সঙ্গে। তবে এই জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে দুদকের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।

দুদক কী জানতে চেয়েছে, জানতে চাইলে তাবিথ বলেন, ‘দুদকের সাথে সুষ্ঠু কথাবার্তা হয়েছে, এখন অনুসন্ধান হচ্ছে তাই সেভাবে কিছু বলতে চাচ্ছি না। তবে আশা করি সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে সত্যটা বেরিয়ে আসবে।’

তবে দুদকের এই উদ্যোগের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে বলে দাবি করেন বিএনপি নেতা। বলেন, ‘আমি মনে করি এগুলো আমাদের সর্বোচ্চ পর্যান্ত সরকারের পক্ষ থেকে রাজনৈকিত উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে হচ্ছে।’

দুদকের এই অনুসন্ধান ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কোনো প্রভাব ফেলবে কি না, এমন প্রশ্নও ছিল তাবিথের কাছে। তিনি বলেন, ‘ওই ইলেকশনটা বর্তমানে স্টে (স্থগিত) আছে। আইনিভাবে আমি এখনও প্রার্থী। আশা করছি এই বিষয়টি সেখানে প্রভাব পড়বে না।’

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ভোট হওয়ার কথা ছিল। এই ভোটে বিএনপি তাবিথকে প্রার্থী করেছিল। তবে ১৭ জানুয়ারি একটি রিট আবেদনে স্থগিত হয়ে যায় নির্বাচন।

তবুও কেন ম্যাচ সেরা নন সাকিব?

গতকাল রাজীব গান্ধী ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে বাংলাদেশি তারকা সাকিব আল হাসানের দুর্দান্ত অলরাউন্ডিংয়ে জয় পায় সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ। দলের বিপর্যয়ে বল হাতে মূল্যবান দুটি উইকেটের পাশাপাশি ব্যাট হাতে নিয়েছেন দলীয় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান। ব্যাটে-বলে উজ্জ্বল সাকিবের দিনেও ম্যাচ সেরার পুরস্কার উঠে নি তার হাতে।

গতকাল হায়দ্রাবাদের যখন দ্রুত উইকেট পড়ছিলো তখন ব্যাট হাতে দাড়িয়ে যান বাংলাদেশি তারকা সাকিব আল হাসান। উইলিয়ামসনকে যোগ্য সঙ্গ দেওয়ার পাশাপাশি ১০৯.৩৭ স্ট্রাইকরেট নিয়ে সংগ্রহ করেন দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৫ রান। সাকিব-উইলিয়ামের ব্যাটে চড়েই পরবর্তীতে ১৪৬ রানের পুঁজি গড়ে হায়দ্রাবাদ। সাকিবের সঙ্গে উইলিয়ামসন করেন ৫৬ রান।

এরপর ব্যাঙ্গালোরের ইনিংসের শুরুটা প্যাটেল দারুণ করলেও তাকে নিজের প্রথম ওভারেই তাকে সাজঘরে ফেরান সাকিব। প্যাটেল ফেরার পর দারুণ ছন্দে ব্যাট চালিয়ে যাচ্ছিলেন ভারত সেরা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি। কোহলি যতক্ষণ ক্রিজে ছিলেন ততক্ষণ ম্যাচটা তাদের হাতেই রেখেছিলেন। সে থাকলে হয়তো গতকালকের ম্যাচের ফলাফলটাও ভিন্ন হতে পারতো। ভয়ংকর হয়ে উঠা সেই কোহলিকে ৩৯ রানে আউট করেন সাকিব। এর পরেই পুরো খেলার মোড় ঘুরে যায় হায়দ্রাবাদের দিকে।

সাকিবের এমন পারফরম্যান্সে বাংলাদেশি ভক্তদের মনেও আশা জেগেছিলো যে আজ ম্যাচ সেরার পুরস্কার উঠবে তাহলে মিস্টার ৭৫ এর হাতে। কিন্তু না! অবশেষে ম্যাচ সেরার পুরস্কার উঠে ৫৬ রান করা উইলিয়ামসনের হাতে। আজ ব্যর্থতার হাসি নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় এই অলরাউন্ডারকে। বার বার ভালো করলেও ম্যাচ সেরার পুরস্কারের মালিক হতে পারেন না তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *